ডেঙ্গু রোগের লক্ষণ কি?

ডেঙ্গু রোগের লক্ষণ: সচেতন থাকুন, নিরাপদ থাকুন

ডেঙ্গু একটি মশা-বাহিত ভাইরাল জ্বর যা বিশ্বের অনেক দেশে, বিশেষ করে গ্রীষ্মমন্ডলীয় এবং উপ-গ্রীষ্মমন্ডলীয় অঞ্চলে দেখা যায়। ডেঙ্গু ভাইরাসের চারটি সেরোটাইপ (DENV-1, DENV-2, DENV-3 এবং DENV-4) রয়েছে যা মানুষকে সংক্রমিত করতে পারে।

ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ:

 

উচ্চ জ্বর: ডেঙ্গু জ্বরের সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণ হলো উচ্চ জ্বর (১০২°F – ১০৫°F)। এই জ্বর সাধারণত ৩-৭ দিন স্থায়ী হয়।

মাথাব্যথা: তীব্র এবং স্পন্দনশীল হতে পারে।

চোখের পেছনে ব্যথা: চোখের পেছনে তীব্র ব্যথা হতে পারে।

পেশী ও শরীর ব্যথা: পেশী এবং হাড়ে ব্যথা হতে পারে।

ক্লান্তি: দুর্বলতা এবং অবসাদ অনুভূত হতে পারে।

বমি বমি ভাব এবং বমি: বমি বমি ভাব এবং বমি হতে পারে।

ত্বকের ফুসকুড়ি: জ্বর নেমে যাওয়ার সাথে সাথে ত্বকে লালচে ফুসকুড়ি দেখা দিতে পারে।

অন্যান্য লক্ষণ: ক্ষুধামান্দ্য, মাথাব্যথা, নাক দিয়ে রক্তপাত, ঠোঁট ও জিহ্বা শুষ্ক হওয়া

চামড়ায় ফুসকুড়ি: জ্বর থেমে গেলে শরীরে লালচে ফুসকুড়ি দেখা দিতে পারে।

রক্তপাত: কিছু ক্ষেত্রে, নাক, মাড়ি, পেট, বা মলদ্বার দিয়ে রক্তপাত হতে পারে।

 

ডেঙ্গু জ্বরের তীব্রতা:

সাধারণ ডেঙ্গু জ্বর: উপরে উল্লেখিত লক্ষণগুলি থাকে।

ডেঙ্গু হেমোরেজিক জ্বর (DHF): প্লেটলেট কমে যায় এবং রক্তপাতের ঝুঁকি বেড়ে যায়।

ডেঙ্গু শক সিনড্রোম (DSS): DHF এর তীব্র পর্যায় যেখানে রক্তচাপ কমে যায় এবং শরীরে রক্ত ​​প্রবাহ হয় না।

ডেঙ্গু জ্বর থেকে রক্ষা করার উপায়:

মশার কামড় থেকে সাবধান থাকুন: মশা repellent ব্যবহার করুন, দীর্ঘ হাতা পোশাক পরুন, এবং মশারি ব্যবহার করুন।

পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখুন: মশার ডিম পাড়ার জায়গা, যেমন জমে থাকা পানি, পরিষ্কার রাখুন।

সচেতনতা বৃদ্ধি: ডেঙ্গু জ্বর সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি করুন এবং অন্যদেরকে সাবধান থাকতে উৎসাহিত করুন।

ডেঙ্গু জ্বর হলে:

দ্রুত ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।

প্রচুর পরিমাণে তরল পান করুন।

পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন।

জ্বর কমাতে প্যারাসিটামল ব্যবহার করুন।

রক্তপাতের ঝুঁকি বৃদ্ধি করে এমন ওষুধ (যেমন অ্যাসপিরিন) এড়িয়ে চলুন।

ডেঙ্গু জ্বর একটি প্রাণঘাতী রোগ হতে পারে। সচেতন থাকুন, প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করুন এবং ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণগুলি দেখা দিলে দ্রুত ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।

চিকিৎসা:

ডেঙ্গু জ্বরের কোন নির্দিষ্ট চিকিৎসা নেই। চিকিৎসার লক্ষ্য হলো লক্ষণগুলি নিয়ন্ত্রণ করা এবং জটিলতা প্রতিরোধ করা।

বিশ্রাম: পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন।

তরল পান: প্রচুর পরিমাণে তরল পান করুন, যেমন পানি, স্যুপ, এবং ORS।

জ্বর কমানো: জ্বর কমাতে প্যারাসিটামল ব্যবহার করুন

ডেঙ্গু রোগের লক্ষণ